টঙ্গীবাড়িতে মাদ্রাসা সুপারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলন ম্যানেজিং কমিটির

টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ ) প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে নিয়মিত ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে মাদ্রাসাটির ম্যানেজিং কমিটি সোমবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলন করেন। সম্মেলনের প্রধান মাদ্রাসাটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি দুলাল হাওলাদার বলেন- আমার দাদার নামে মাদ্রাসাটি নির্মিত। সুপার সাহেব ব্যাক্তিগত ১৯ শতাংশ জমি মাদ্রাসায় দিয়েছেন। ২০০৪ সাল থেকে কাউসার হামিদ মাদ্রাসাটি তিলতিল করে দাড় করিয়েছে। প্রথম শ্রেনী থেকে দাখিল পর্যন্ত শিক্ষার্থীকে উপযুক্ত শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করে আজ তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার। তিনি আরো বলেন আমি দীর্ঘ দিনে যা দেখেছি এবং শুনেছি সুপার সাহেব অত্যান্ত ভদ্রলোক, তিনি কারো সাথে অসৈজন্য মূলক আচরন করেন নাই। শিক্ষার্থীদের সাথে শিক্ষকের মতই আচরন করেছেন। একটি মহল মাদ্রাসার কমিটিতে আসতে না পেরে মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে গুজব রটাচ্ছে যা কখনো ঘটে নাই। মূলত সম্পত্তি লোভী চক্রান্তকারীরা উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে লোকভাড়া করে সুপারের বিরুদ্ধে দাড় করিয়েছে। মাদ্রাসায় পড়–য়া শিক্ষার্থী কিংবা তাদের কোন অভিভাবকের কোন অভিযোগ নাই সুপারের বিরুদ্ধে। দু’জন ছাত্রী যারা নিজ ইচ্ছায় ২ বছর আগে মাদ্রাসা থেকে গিয়ে স্কুলে ভর্তি হয়েছে তাদের দিয়ে মিথ্যা অভিযোগ করানো হচ্ছে। তারা চক্রান্তকারীদের নিকট আতœীয়। সরকারী নিয়ম ও নীতিমালা শৃঙ্খলার সহিত মানিয়া সুপার সাহেব নিষ্টার সাথে দাায়িত্ব পালন করছেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ম্যানেজিং কমিটির সদস্য হারুন রশিদ শেখ, মো: মনির হোসেন শেখ, অভিভাবক সদস্য রোকসানা আক্তার, নেকবর মেলকার, মো: ফরহাদ হাওলাদার, মো: আল-আমিন হাওলাদার, আওলাদ হাওলাদার, শহীদুল্লাহ রাঢ়ীসহ শিক্ষানুরাগী ব্যাক্তিগন। এ সময় বক্তারা আশঙ্কা করেন মাদ্রসার সুপার কাউসার হামিদকে সরিয়ে দুষ্ট চক্রটি বিনা মূল্যে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ করে জমি আতœসাৎ করতে পারে। সুপার মাদ্রসার দক্ষিন পাশে আবাসিক হিসেবে স্ত্রী ও কন্যা সন্তানদের নিয়ে থাকেন। সেখানে তাদের জীবনের উপর যে কোন সময় হামলার ও আশঙ্কা করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে